যেভাবে সাইবার অপরাধ বাড়ছে তাই ইতিমধ্যেই স্টেট ব্যাংক, পাঞ্জাব ন্যাশনাল ব্যাংক, এইচডিএফসি ব্যাংক‌ গ্রাহকদের সতর্ক করেছিল। তাদের পাশাপাশি গ্রাহকদের সতর্ক করল এমপ্লয়িজ প্রভিডেন্ট ফান্ড অর্গানাইজেশন (ইপিএফও) ।

টুইটের মাধ্যমে ইপিএফও সতর্ক করেছে কোনও রকম ব্যক্তিগত তথ্য যেন ফোন অথবা সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে শেয়ার না করা হয়। গ্রাহকের সামান্য ভুল ত্রুটির জেরে তার অ্যাকাউন্ট ফাঁকা হয়ে যেতে পারে। একইসঙ্গে দেখা গিয়েছে বিভিন্ন নথিভূক্ত কোম্পানি সম্পর্কে মেসেজ আসায় বিএসই এবং এনএসই সতর্ক করেছে লগ্নিকারীদের।

করোনার কারণে রীতিমতো ধাক্কা খেয়েছে কর্মসংস্থান। লক্ষ লক্ষ মানুষ চাকরি হারিয়েছেন। কিন্তু তাই বলে সাইবার ঠকদের অসুবিধা হচ্ছে না জনগণের কষ্টার্জিত টাকা হাতিয়ে নিতে। এমন করোনা অতি মহামারীর যুগে সাইবার অপরাধ বেড়ে চলেছে। এইসব সাইবার ঠগেরা প্রতিদিন নিত্য নতুন পথে মানুষকে প্রতারণা করছে। এক্ষেত্রে আপনার সামান্য ভুলচুকে কষ্টার্জিত টাকা লুট হয়ে যেতে পারে।

ইপিএফও টুইট করে জানিয়েছে, তারা সরাসরি ইপিএফও-র টোল ফ্রি নম্বর থেকে অভিযোগ জানাতে পারেন। ইপিএফও টোল ফ্রি নম্বর হল- ১৮০০১১৮০০৫ যা সপ্তাহের প্রতিদিন ২৪ ঘন্টাই খোলা থাকে।

কখনই ইউ এন নম্বর, প্যান কার্ড নম্বর, আধার নম্বর, ব্যাংক অ্যাকউন্ট নম্বরের মতো নিজের ব্যক্তিগত তথ্য ফোন অথবা সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করবেন না। এই সংস্থা কখনও গ্রাহকের এই ধরনের ব্যক্তিগত তথ্য জিজ্ঞাসা করবে না।

দেশের প্রধান দুটি স্টক এক্সচেঞ্জ বিএসই এবং এনএসই লগ্নিকারীদের সতর্ক করেছে বিভিন্ন নথিভূক্ত কোম্পানি সম্পর্কিত মেসেজ সম্পর্কে। স্টক এক্সচেঞ্জের এক আধিকারিক জানান, হোয়াটসঅ্যাপ এবং এসএমএস মারফত বেশকিছু নথিভূক্ত সংস্থা এখন বার্তা দিতে থাকায় এমন উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

দুটি স্টক এক্সচেঞ্জ গত বৃহস্পতিবার একই রকম সার্কুলারের মাধ্যমেএমন কথা জানিয়েছে। এর কারণ অবশ্য স্টক এক্সচেঞ্জ গুলি এই বিষয়ে বেশকিছু ইমেইল পেয়েছে।।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.