নিখিল জৈনের ইনস্টাগ্রাম থেকে ঘুরে আসুন। না, আপনি যদি আগে থেকে নিখিলের ‘ফলোয়ার’ হয়ে না থাকেন, তাহলে ঘুরে আসতে পারবেন না। কেননা, ঢালিউড তারকা নুসরাত জাহানের ‘কাগজে–কলমে’ স্বামী নিখিলের ইনস্টাগ্রামে এসেছে বেশ কিছু পরিবর্তন।

নিজের ইনস্টাগ্রামে তালা ঝুলিয়ে দিয়েছেন নিখিল। তাঁর অ্যাকাউন্ট এখন প্রাইভেট। নুসরাত আর তাঁর বিচ্ছেদ নিয়ে যে চর্চা চলছে, সেই চাপ এড়াতেই এমন সিদ্ধান্ত নিলেন। কয়েক মাস ধরেই গণমাধ্যম, অনলাইন আর অফলাইনের আড্ডায় স্থান করে নিয়েছে নিখিল আর নুসরাতের বিচ্ছেদের খবর। অফিশিয়ালি এখনো তাঁরা স্বামী-স্ত্রী। তবে মন আর ইনস্টাগ্রাম থেকে দুজনই দুজনকে মুছে ফেলেছেন। নুসরাত আগেই তাঁর ইনস্টাগ্রাম থেকে সব ছবি মুছে ফেলেছিলেন। এবার নিখিলও নুসরাতের সমস্ত ছবি মুছে ফেললেন।

লকডাউনের মাঝামাঝি সময়ে নিখিলের বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান নুসরাত। তারপর সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম থেকে আনফলো আর আনফ্রেন্ড করেন। একজন আরেকজনের সব ছবিও ডিলিট করে দেন। স্ত্রীকে আনফলো করার পর তাঁর বেশির ভাগ ছবি মুছে দিয়েছিলেন নিখিল। তবে নিজেদের বিয়ের দুটি ছবি রয়ে গিয়েছিল নিখিলের ইনস্টাগ্রাম প্রোফাইলে। সেগুলোও অবশেষে ডিলিট করে নিজের ইনস্টাগ্রামে তালা দিয়ে রাখলেন তিনি।

ভালোবাসা দিবসে স্ত্রীকে নিয়ে সর্বশেষ পোস্ট দিয়েছিলেন। নুসরাতের নাম না নিয়েই লিখেছিলেন, ‘তুমি আমাকে কথা দিয়েছিলে। সেই প্রতিজ্ঞা রাখতে পারলে না। কেউ একজন গিয়ে অন্য মানুষে পরিণত হয়েছে। তবে আমি এখনো সেই আগের মতোই আছি।’

নিখিল নাকি নুসরাতকে বিবাহবিচ্ছেদে নোটিশ ধরিয়েছেন—এমন খবরও প্রকাশিত হয়েছে। অবশ্য নুসরাত জানান, ডিভোর্স নোটিশের খবর ‘ভুয়া ও ভিত্তিহীন’। সময় এলেই তিনি এই সম্পর্কে কথা বলবেন বলেও জানান। তার আগপর্যন্ত তাঁর ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে চর্চা হোক, তা চান না বলেও যোগ করেছেন। তবে নিখিল এই খবর সরাসরি নাকচ করেননি। সম্পর্ক জোড়া লাগার কোনো সম্ভাবনাই দেখছে না ভক্তরা। তাই বিচ্ছেদের নোটিশ পাঠানো কেবলই সময়ের দাবি।

নুসরাতের ‘স্বাধীন জীবন’ মেনে নিতে পারছিলেন না নিখিল জৈন। নুসরাত হঠাৎ করে টালিউড তারকা যশ দাশগুপ্তের সঙ্গে সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন। শুধু তা-ই নয়, নুসরাত আর যশ আজমির শরিফে গিয়ে একসঙ্গে ছুটিও কাটিয়েছেন। নুসরাত আর যশ দুজনের ইনস্টাগ্রামেই দেখা যাচ্ছে তাঁদের বেশ কিছু ছবি। যদিও তাঁরা সম্পর্কের নাম দিয়েছেন ‘ভালো বন্ধু’। এ নিয়ে অশান্তি দেখা দেয় নুসরাত ও নিখিলের দাম্পত্য জীবনে। তার ফলাফল এসে দাঁড়িয়েছে বিচ্ছেদের দ্বারপ্রান্তে।

নুসরাতের জন্ম ১৯৯০ সালের ৮ জানুয়ারি। কমার্সে ডিগ্রি নেন ভবানীপুর কলেজ থেকে। ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে উত্তর ২৪ পরগনার বশিরহাট কেন্দ্র থেকে তৃণমূলের টিকিটে জয়লাভ করেন তিনি।

২০১৯ সালের ১৯ জুন তুরস্কে বিয়ে করেছিলেন নুসরাত জাহান ও নিখিল জৈন। কলকাতার ছেলে নিখিল পেশায় ফ্যাশন ডিজাইনার ও ব্যবসায়ী। ২০১৮ সালে পূজায় ব্যবসায়ী নিখিল জৈনের শাড়ির ব্র্যান্ডের বিজ্ঞাপনের মুখ হয়েছিলেন নুসরাত জাহান। এই কাজের সূত্রেই তাঁদের পরিচয়। অল্প দিনেই সম্পর্ক গাঢ় হয়। এরপর তাঁরা দুজন বিয়ের সিদ্ধান্ত নেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.