এক নারীর বিকারগ্রস্ত আচরণে রাশিয়ার এক উড়ন্ত বিমানে শোরগোল পড়ে যায়। পরিস্থিতি হাতের বাইরে চলে যাচ্ছে দেখে নেওয়া হয় কড়া ব্যবস্থা। তাকে সিটের সঙ্গে দড়ি দিয়ে বেঁধে নিয়ে বাকি পথ উড়ে যায় বিমানটি।

জানা গেছে, রাশিয়ার ওই বিমানটি ভ্লাদিভসটক থেকে আকাশে উড়ে। তার ঠিক ১৫ মিনিট পর এক নারী নিজের আসন ছেড়ে উঠে কেবিনের আশপাশে আচমকাই হাঁটাহাঁটি শুরু করেন বলে জানিয়েছেন প্রত্যক্ষদর্শীরা। নিষেধ করা হলে তিনি নিজের হাঁটার গতি বাড়িয়ে দেন।

এরপর তিনি নিজের পরনের পোশাক খুলে ফেলে ফের তা গায়ে চাপাতে শুরু করেন। এই প্রক্রিয়া বেশ কয়েকবার চলার পর ওই যাত্রী তার অন্তর্বাস খোলার চেষ্টা করলে সবাই মিলে বাধা দেন তাকে।

বিমানের ক্রুরা বার বার সাবধান করা সত্ত্বেও ওই নারী কোনো কথা শোনেননি।। শেষে বাধ্য হয়ে বিমানের যাত্রী ও কর্মীরা মিলে মাঝ-আকাশে তার আসনের সঙ্গে দড়ি দিয়ে বেঁধে দেওয়া হয়।

ওই নারী যাতে নিজের এবং বিমানের বাকি সদস্যদের ক্ষতি করতে না পারে সেটা ভেবেই এই ব্যবস্থা নেওয়া হয়। সেই দৃশ্যই ভাইরাল হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়।

বিমানটি যথাসময়ে সাইবেরিয়ার নভোসিবিরসকের তোলমাচেভো বিমানবন্দরে নামলে পুলিশকে খবর দেওয়া হয়। পরে ওই নারীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

প্রাথমিক তদন্তে জানা গেছে, ওই নারী ড্রাগ নিয়ে বিমানে উঠেছিলেন। কিন্তু ডোজ বেশি হয়ে যাওয়ায় তিনি নিজের নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলেছিলেন বলে জানিয়েছে পুলিশ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.